1. info@www.doiniknews71.com : দৈনিক নিউজ ৭১ :
বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ১২:৫১ অপরাহ্ন
সর্বশেষ :
উজানচর কংশ নারায়ণ উচ্চবিদ্যালয়ের এসএসসি ফলাফল পুনঃ নিরীক্ষণে পাশের হার শতভাগ। হোমনায় রেহানা বেগম পুনরায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত;ভাইস চেয়ারম্যান নতুন মুখ। বাঞ্ছারামপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের বেসরকারি ফলাফল ঘোষণা। পরীক্ষামূলক সম্প্রচার হোমনায় ছেলের হাতে মা খুন- ছেলে আটক, বাঞ্ছারামপুরে কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা দিলো উজানচর কংশ নারায়ণ উচ্চবিদ্যালয় কালিকাপুর মানব সেবা সংগঠনের ঈদ সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠিত। বাঞ্ছারামপুরে ক্যাপ্টেন এবি তাজুল ইসলাম এমপির শাড়ি লুঙ্গি বিতরণ ভেলানগর প্রবাসী কল্যাণ সংগঠনের উদ্যোগে ঈদ উপহার বিতরণ। গ্রীন ভয়েস বাঞ্ছারামপুর উপজেলা শাখার উদ্যোগে ঈদ সামগ্রী বিতরণ।

বাঞ্ছারামপুরে রাতের আঁধারে কৃষকের গাছ কেটে দিল দুর্বৃত্তরা

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: শনিবার, ২৯ জুলাই, ২০২৩
  • ১১৪১ বার পড়া হয়েছে

ডেস্ক রিপোর্ট

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার উজানচর ইউনিয়নের সেকের কান্দি গ্রামের আক্তার হোসেন নামে এক হতদরিদ্র কৃষকের ৪২০টি কাশ্মীরি আপেল কুল বরুই,মাল্টা গাছের চারা এবং ২০ শতাংশ জমির চিচিঙ্গা কইডা রাতের আঁধারে কেটে দিয়েছে দৃর্বৃত্তরা।

ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক আক্তার হোসেন বলেন, বাড়ির অদূরে কবরস্থান সংলগ্ন সাড়ে ৫২ শতাংশ জমিতে উন্নত জাতের কাশ্মীরি আপেল কুল বরুই,মাল্টা গাছের চারা নরসিংদী নার্চারী থেকে ১৫০ টাকা পিস ক্রয় করে ৪২০ টা গাছের চারা জমিতে এনে রোপণ করি এবং আরো ২০ শতাংশ জমিতে কইডা চাষ করি এতে আমার প্রায় ৫ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে আমি বিভিন্ন শাকসবজি চাষ করে তা বাজারে বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করি।

আমি ধারদেনা করে বেশী লাভের আশায় এই বাগানটায় উন্নত জাতের ফল গাছের চারা রোপণ করি ও জমিতে কইডা চাষ করি।

শনিবার (২৯ শে জুলাই ) রাতের আঁধারে সমস্ত বাগানের ফুল ও ফলসহ ৪২০টি গাছ ও কইডা জমিসহ দৃর্বৃত্তরা কেটে ফেলে যায়।

শনিবার সকালে জমিতে গিয়ে গাছগুলি কাটা অবস্থায় দেখতে পান তিনি। পরে স্থানীয়রা খবর পেয়ে সাংবাদিকদের খবর দিলে তারা বিষয়টি উপজেলা কৃষি অফিসারকে জানান, তখন তিনি কৃষি উপসহকারি কর্মকর্তা ফারজানা ইয়াসমিন ও সাইদুল হককে সরেজমিনে পাঠান তারাও গাছগুলি কাটা অবস্থায় দেখতে পেয়ে দুঃখপ্রকাশ করেন। তবে কে বা কাহারা রাতের আঁধারে তার এতবড় ক্ষতি করেছে, এর কোনো উত্তর তার জানা নেই।

হতদরিদ্র কৃষক আক্তার হোসেন কান্না জনিত কণ্ঠে তার এত বড় ক্ষতি কে করেছেন? তিনি বাঞ্ছারামপুর উপজেলা কৃষি অফিসার মো.নাছির উদ্দিনের সহযোগিতা চেয়েছেন এবং প্রশাসনের কাছে তিনি বিচার দাবি করেছেন।

একই গ্রামের বাঞ্ছারামপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-সভাপতি আবু কালাম বলেন, আক্তার হোসেন একজন ভালো মানুষ। তিনি কারো সাথে খারাপ কোনো আচরণ করেছে বলে মনে হয় না। তার এই গাছগুলি তার নিজের জমিতে ছিল। এতে কারো কোনো ক্ষতি হয়েছে বলে মনে হচ্ছে না। তার পরেও কেন তার গাছগুলি দুর্বৃত্তরা কেটে দিল তা তারাও বলতে পারছে না।তবে তিনি প্রশাসনের কাছে সুষ্ঠু বিচার দাবী করছেন।

বিশিষ্ট সমাজ সেবক মোশারফ হোসেন সরকার বলেন আক্তার ভালো মানুষ, পাড়া মহল্লার কারো সাথে কোন ঝগড়া বিবাদ বা শত্রুতা নেই। তার পরেও যারা শত্রুতা করে আক্তার হোসেনের এতবড় ক্ষতি করেছে তাদের বিচার হওয়া দরকার।

উপজেলা কৃষি অফিসার মো.নাছির উদ্দিন বলেন আমি ঘটনাটি শুনে আমার ২ জন উপসহকারি অফিসার পাঠিয়েছি,ঘটনাটি খুবই দুঃখজনক, গাছ কাটলে পরিবেশ ও দেশের ক্ষতি হয় এটি ফৌজদারী অপরাধের সমান, আমি ইউএনও মহোদয় ও ওসিকে বিষয়টি জানিয়েছি তিনি আইনগত ব্যবস্হা নিবেন আর সরকারি ভাবে গাছের চারা আসলে বিনামূল্যে দেওয়ার ব্যবস্থা করবো।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায়: বাংলাদেশ হোস্টিং